ঢাকামঙ্গলবার , ৪ জুন ২০২৪
আজকের সর্বশেষ খবর

আগামীকাল ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২০২৪ (সদর উপজেলা) উপলক্ষে যশোর জেলা পুলিশের আয়োজনে পুলিশ লাইন্স মাঠে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নির্বাচনী ব্রিফিং অনুষ্ঠিত।

রিপোর্টার স্বপন মিয়া 
জুন ৪, ২০২৪ ১১:০১ অপরাহ্ণ । ২৩১ জন
Link Copied!

print news

অদ্য ০৪/০৬/২০২৪খ্রিঃ সকাল ০৮.০০ ঘটিকায় আগামীকাল ৫ ই জুন ২০২৪খিঃ অনুষ্ঠিতব্য ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন(সদর উপজেলা) উপলক্ষে নির্বাচন ডিউটিতে নিয়োজিত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর(পুলিশ ও আনসার )সকল পদমর্যাদার সদস্যদের নিয়ে পুলিশ লাইন্সে এক নির্বাচনী ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।উক্ত নির্বাচনী ব্রিফিং এ সভাপতিত্ব করেন যশোর জেলার সম্মানিত পুলিশ সুপার(অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) জনাব প্রলয় কুমার জোয়ারদার, বিপিএম(বার), পিপিএম মহোদয়।সম্মানিত পুলিশ সুপার মহোদয় আগামীকাল ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২০২৪খ্রিঃ অবাধ, সুষ্ঠু, নির্বিঘ্নে ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত করতে নির্বাচন ডিউটিতে কর্মরত সকল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দিকনির্দেশনা দেন।পরবর্তীতে তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন। তিনি বলেন, আপনারা ইতিমধ্যেই দেখেছেন বিগত যশোর জেলায় অনুষ্ঠিত সাতটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অত্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয়েছে, যেটা অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে ভালো ছিল। তিনি বলেন, বিগত ধাপ গুলোতে একাধিক উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় যে সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন ছিল এবার চতুর্থ ধাপে মাত্র একটি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় তার চেয়ে বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়ন করতে পেরেছি। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রায় ছয় হাজার সদস্য মোতায়েন রয়েছে এবং নিরাপত্তা পরিকল্পনায় কয়েকটি স্তরে সাজানো হয়েছে। মোটকথা নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকবে যশোর সদর উপজেলা। প্রতি তিনটি কেন্দ্র নিয়ে একটি মোবাইল টিম থাকবে যার নেতৃত্বে থাকবে একজন ইন্সপেক্টর পদমর্যাদা পুলিশ সদস্য। আমরা এর আগে একটি ইউনিয়নের জন্য একটি স্ট্রাইকিং পার্টি নিয়োজিত করতাম কিন্তু এবারের নির্বাচনে আমরা একটি ইউনিয়নকে কেন্দ্র করে দুটি স্ট্রাইকিং পার্টি রেখেছি।এছাড়া পৌর সভার প্রতিটি ওয়ার্ডের জন্য একটি করে স্ট্রাইকিং পার্টি কাজ করবে অর্থাৎ বিভিন্ন স্তরের নিরাপত্তার বেষ্টনীতে সাজানো হয়েছে নির্বাচনী এলাকা। নির্বাচনে পোশাকের পাশাপাশি সাদা পোশাকে ডিএসবিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করবে। অর্থাৎ নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা থাকবে, ভোটাররা নিরাপদে, নির্বিঘ্নে ও নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে আসবেন এবং নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে বাড়ি ফিরে যাবেন নিরাপত্তার দায়িত্ব আমাদের।  তিনি বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন প্রকার আশঙ্কা দেখছি না, এরপরও যদি কোন দুষ্কৃতকারী নির্বাচনের যে অনুকূল পরিবেশ আছে সেটা নষ্ট করার অপচেষ্টা করে, ভোটারদের কোন ধরনের ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে কিংবা ভোটকেন্দ্রে আসতে বাধা প্রয়োগ করে তবে তার বিরুদ্ধে কঠিন ও কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।উক্ত ব্রিফিং অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলায় দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং অফিসার, সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার, আনসার এবং জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ফোর্সবৃন্দ।