ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২১ মার্চ ২০২৪
আজকের সর্বশেষ খবর

খাল পরিষ্কার কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠান চলাকালীন মন্ত্রী, মেয়র,মশার কামড়ে অতিষ্ঠ

রিপোর্টার ফাহারিয়া ইসলাম মুন
মার্চ ২১, ২০২৪ ৪:৩৩ পূর্বাহ্ণ । ৩৬ জন
Link Copied!

print news

রাজধানীর উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরে রাজউকের একটি খাল পরিষ্কার ও মশক নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। এ সময় মশা নিধনে খাল (লেক) পরিষ্কার কর্মসূচি পরিদর্শনে যান স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। সেখানে গিয়ে মশার কামড় খেলেন তারা। গতকাল বুধবার সকাল ৯টা থেকে এই কার্যক্রম শুরু হয়। একই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন রাজউকের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান মিঞাসহ ঢাকা উত্তর সিটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠান চলাকালীন মন্ত্রী, মেয়র, অন্য অতিথিসহ উপস্থিত সবাই মশার কামড়ে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেন। স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলামের ফেসবুক পেজে দেওয়া এক লাইভ ভিডিওতে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। ঐ ভিডিওতে মন্ত্রী, মেয়রসহ অন্যদের হাত দিয়ে মশা তাড়াতে দেখা যায়। কেউ কেউ মশায় কামড় দেওয়া স্থানে হাত দিয়ে চুলকাচ্ছিলেন। মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের একাধিক কর্মকর্তা। এ সময় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী জানান, এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে মন্ত্রণালয়ে প্রস্তুতি সভা করা হয়েছে। পাশাপাশি সিটি করপোরেশনগুলোর সক্ষমতা পর্যালোচনা করে যেখানে যতটুকু দরকার মন্ত্রণালয় থেকে সহযোগিতা করা হয়েছে।এডিস মশা নির্মূলে জনপ্রতিনিধি এবং জনগণকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘নিজের বসতবাড়ি এবং এলাকা পরিষ্কার করার দায়িত্ব আমাদের সবার। সবাই নিজের দায়িত্ব পালন করলে প্রাণঘাতী ডেঙ্গু জ্বর থেকে আমরা নিজেদের রক্ষা করতে পারব।’পরে ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘কিউলেক্স মশা নিধনে আমরা খাল পরিষ্কার কার্যক্রম শুরু করেছি। উত্তরার রাজউক খালে প্রচুর কচুরিপানা, যে কারণে উত্তরা এলাকায় কিউলেক্স মশা ব্যাপক বেড়ে গেছে। এই খালের মালিকানা রাজউকের (রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ)। আজ এসে জানতে পারলাম এটিতে ওয়াসারও মালিকানা আছে। আমি অনেক বার বলেছি খালটি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনকে হস্তান্তর করার জন্য। কিন্তু এখনো খাল হস্তান্তর করা হয়নি। এ এলাকায় নিয়মিত ওষুধ ছিটালেও খালের কচুরিপানা থেকে প্রচুর মশা জন্মায়। স্থায়ী সমাধানের জন্য খাল পরিষ্কারের কোনো বিকল্প নেই। এই খাল ডিএনসিসির না হওয়া সত্ত্বেও মশা নিধনের লক্ষ্যে আমরা পরিষ্কার করছি।’তিনি আরো বলেন, আমরা ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর থেকেই ব্যাপকভাবে ক্যাম্পেইন শুরু করব। গতবার মশার লার্ভা নিধনের জৈব কীটনাশক বিটিআই (বাসিলাস থুরিনজেনসিস ইসরায়েলেনসিস) আমিদানির উদ্যোগ নিয়েছিলাম কিন্তু আপনারা জানেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের জালিয়াতির কারণে সেটি ব্যবহার করা যায়নি। তাই এবার আমরা সিটি করপোরেশন থেকে সরাসরি বিটিআই আমদানি করছি। আশা করছি আগামী দুই মাসের মধ্যে বিটিআই নিয়ে আসব। ওষুধ ছিটানোর জন্য অত্যাধুনিক মেশিনও (হুইলবারো মেশিন) আনার প্রক্রিয়া চলছে। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আমরা বর্ষার আগেই প্রস্তুতি নিয়েছি।এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসি মেয়রের উপদেষ্টা ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ববিদ অধ্যাপক ড. কবিরুল বাসার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ এবং নগর পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মীর খায়রুল আলম, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগে. জেনা. মো. মঈন উদ্দিন, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ ফিদা হাসান, ৫১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ শরীফুর রহমান, ৫২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ফরিদ আহমেদ, সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর কমলা রানী মুক্তা ও জাকিয়া সুলতানা এবং ডিএনসিসির অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।