ঢাকাশুক্রবার , ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য
আজকের সর্বশেষ খবর

যারা পণ্য লুকিয়ে রেখে দাম বাড়ায় তাদের ‘গণধোলাই’ দেয়া উচিত বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

স্টাফ রিপোর্টার মেহেদী হাসান 
ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪ ৫:৪৯ অপরাহ্ণ । ৫১ জন
Link Copied!

print news

বাংলাদেশের দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সরকারবিরোধী আন্দোলনকারীরা জড়িত থাকতে পারে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, যারা পণ্য লুকিয়ে রেখে দাম বাড়ায় তাদের ‘গণধোলাই’ দেয়া উচিত। শুক্রবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা গত সপ্তাহে জার্মানির মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশ নেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। ওই সফরের বিষয়ে গণমাধ্যমকে জানাতে তার রাষ্ট্রীয় বাসভবন গণভবনে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয় এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী মন্তব্য করেন, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সরকার বিরোধী আন্দোলনকারীদের সম্পৃক্তা আছে কি না “আপনাদের মনে হয়না এটার সঙ্গে যারা এখানে সরকার উৎখাতের আন্দোলন করে তাদেরও কিছু কারসাজি আছে?”শেখ হাসিনা বলেন, “এর আগে দেখা গেল পেঁয়াজের খুব অভাব। পরে দেখা গেল বস্তাকে বস্তা পেয়াজ ফেলে দিচ্ছে। এই লোকগুলোকে কী করা উচিত? গণধোলাই দেয়া উচিত।”আরও বলেন, “আমরা কিছু করলে তো বলবে সরকার করছে। তার থেকে পাবলিক যদি এটার প্রতিকার করে তাহলে সব থেকে ভালো হয়, কেউ কিছু বলতে পারবে না।”“একসময় বাংলাদেশে অভাব হলে তো শোনা যেত পেটে ভাত নাই, এখন কি সে কথাটা বলে?“কী বলে, ডিমের দাম, পেঁয়াজের দাম, মুরগি, গরুর মাংসের দাম অথবা পাঙ্গাস মাছের পেটি খেতে পারছে না।” যোগ করেন তিনি।আওয়ামী লীগ ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার আগের সময়ের সঙ্গে তুলনা টানেন শেখ হাসিনা ১৫ বছর আগের ভাতের জন্য হাহাকার ছিল। একটু নুন ভাত, ভাতের ফ্যান চাইতো রমজানে বাজার নিয়ন্ত্রণ প্রসঙ্গ প্রতিবছর মুসলিমদের কাছে অন্যতম পবিত্র মাস রমজান এলেই বাজার পরিস্থিতি আলোচনায় আসে। এই সময়ের প্রয়োজনীয় পণ্যগুলোর দামের সঙ্গে পাল্লা দিতে হিমশিম খেতে হয় নির্দিষ্ট আয়ের মানুষদের আসছে রমজানে বাজার ব্যবস্থাপনায় কী পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার? এমন প্রশ্নে শেখ হাসিনা বলেন, “রমজানে কোনো জিনিসের অভাব হবে না। সব রকমের ব্যবস্থা করা হয়েছে।”প্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্য ছোলা, খেজুর, চিনি ইত্যাদি পর্যাপ্ত পরিমাণে আনা হয়েছে বলে জানান তিনি প্রধানমন্ত্রী বলেন, “কৃষকরা বাজারের দাম দেখে তারপর ছাড়ে। দাম না পেলে বাজারে ছাড়ে না।”দাম নিয়ন্ত্রণের প্রক্রিয়া অনেকটা শাখের করাতের মতো কাজ করে বলে মন্তব্য করেন তিনি “বাজারমূল্য বেশি কমালে কৃষক দাম পাবে না, আবার বাড়ালে সীমিত আয়ের মানুষ কিনতে পারবে না।”